সাধারন জ্ঞান

সাফল্য পাওয়ার জন্য ১৫ টি মুলমন্ত্র জেনে নিন ?

জীবনে-সাফল্য-হতে-চান -জীবনে সফল হওয়া বড়ই একটি কঠিন কাজ। আর সফলতার পিছনে অনেকেই ছুটে চলে জেনে বা না জেনে। একজন পুরুষের কাছে অনেক কঠিন ব্যাপার,নারীর কাছে তো আরো কষ্টসাধ্য হয়ে যায়।আর সফলতার পিছনে বিখ্যাত বিশ্বের পরিচিত কয়েকজন সফল ব্যক্তি তাদের সফলতার পিছনে মূল মন্ত্র বলেছেন।আজকে আমার এই আর্টিকেলটিতে একজন মানুষ কিভাবে তার জীবনের সফলতা আনতে পারবে সে বিষয়ে সম্পর্কে আমার এই লেখাটি আপনাদের জন্য উৎসর্গ করলাম। আশা করি আপনারা আমার লেখাটি ভালোভাবে পড়লে দেখবেন সে সমস্ত সাফল্য ব্যক্তির প্রতিষ্ঠিত হওয়ার সেরা ১৫ টি কৌশল ও মূলমন্ত্র তাহলে চলুন দেখে নেয়া যাক সেই আসল সফলতার পিছনে কাহিনীটি- 

আপনি যদি জীবনে সাফল্য পেতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে নিজেকে নিয়ে ভাবতে হবে আসলে আমি কি আমার দ্বারা কি করা সম্ভব আমি কোন কাজটি করতে পারবো সেই সম্পর্কে আপনাকে অবশ্যই নিজেকে ভাবতে হবে। আপনি জীবনে যে ক্ষেত্রেই সাফল্য হতে চান না কেন তো অবশ্যই আপনাকে যত্ন সহকারে শিখতে হবে।

জীবনে-সাফল্য-হতে-চান

আপনি যদি নিজেকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেন তাহলে আপনি জীবনের ভারসাম্য খুঁজে পাবেন না। এক্ষেত্রে আপনাকে নিজের শারীরিক ও মানসিকের দিকে নজর দিতে হবে। বলেছেন বিখ্যাত অভিনেত্রী এমা থম্পসন।

১। যে কাজটি কঠিন মনে হবে, সে কাজটি প্রথমে করতে হবে

জীবনে সাফল্য লাভ করতে গেলে আপনাকে অবশ্যই নিজের কাজটি কঠিন মনে হচ্ছে সে কাজটি সবার আগে শেষ করতে হবে। যদি আপনার মন বলে এই কাজটি আমার দ্বারা সম্ভব না আমি পারবো না তাহলে তুমি কখনোই সে কাজটি আর করতে পারবে না।

জীবনে-সাফল্য-হতে-চান

মনে রাখতে হবে,সাফল্য মানেই কঠিন কাজ। ধরেন, আজকে আমি আপনাদের জন্য যে আর্টিকেলটি লিখতেছি মনে হচ্ছে আপনি এটার ছোট থেকে আমার কাজ সেটা কখনোই না এটা আমার জন্য একটি অসম্ভব কাজ ছিল কিন্তু আমি বারবার চেষ্টা করার পরেও যখন ব্যর্থ হই তারপরেও আমি কখনো হাল ছেড়ে দেইনি অতঃপর আমি এখন মোটামুটি লিখতে পারি। https://daliatista.com

প্রত্যেকটি মানুষের ভিতরে কোনো না কোনো ভালো গুণ লুকায় থাকে আপনি একা বসে একটু ভাবেন, ঠিকই পেয়ে যাবেন, ভাবতে পারেন পারবো কি, পারবো না, এই দ্বিমত পোষণ যখন মনে আসবে, সেটিকে কখনোই আশ্রয় দিবেন না।

আপনি যে কাজটি করতে চান? সেটা বারবার মুখে উচ্চারণ করুন আমি পারব; আমার দ্বারাই সম্ভব পৃথিবীতে কঠিন বলে কোন কিছু কাজ নেই। অতএব আমি কাজটি শুরু করব, দেখবেন সহজেই কাজটা হয়ে গেছে।

২। প্রতিটি কাজেই উত্তম হবো এই মনোভাব ত্যাগ করতে হবে

জীবনে-সাফল্য-হতে-চান-কিছু মানুষ মনে করে আমি সব কাজ করতে পারি, আমি মনে হয় অলরাউন্ডার। এটা কখনেই সম্ভব নয়, একটা মানুষ সবক্ষেত্রে সফলতা অর্জন করা তার পক্ষে সম্ভব নয়। কাজ করতে গেলে ব্যর্থতা আসবেই,যেমন ঠিক তেমনী সাফলতা হবেই এটাই সঠিক।

যে ব্যক্তি কাজ করে তারই তো ভুল হবে এটাই স্বাভাবিক। আর যে কাজ করে না তার আবার ভুল কিসের। সব কাজই আপনি সেরা হবেন এই মনোভাব আপনাকে ছেড়ে দিতে হবে। ধরেন আমি আর্টিকেল লিখি আমার সব লেখা ভাল হবে এটা কখনেই ভাবা সম্ভব নয়। ভাল মন্দ লেখা হবে, একদিন সঠিক হবে ঠিক সেই দিন আমি সাফলতা পাবো।

৩। ঘড়িতে সময় দেখে নয় আপনার মনের মাঝে অ্যালার্ম সেট করুন

আমাদের মস্তিস্ক কতটা সজাগ থাকে আমরা অনেকেই জানি না। ঘড়িতে যদি আপনি অ্যালার্ম দিওেয় ঘমাতে যান তাহলে অনেক সময় আমরা ঘমু থেকে জাগি না।

কিন্তিু যদি মনের ভিতরে ঘুমানো আগে মস্কিস্কে নির্দেশ দেই যে আমি সকালে বিছানা থেকে উঠবো,তাহলে দেখবেন ঠিক সময় আপনার মস্তিস্ক জেগে তুলবে। জীবনে সাফল্য পেতে হলে আপনাকে সূর্য উদিত হওয়ার আগে আপনাকে উদিত হতে হবে।

আমরা যদি না জাগি মা কেমনে সকাল হবে,

সূর্যি মামা জাগার আগে,উঠবো আমি জেগে

তোমার ছেলে উঠবে মাগো রাত পোহালে তবে।

৪। আরামকে হারাম করতে হবে 

সফলতা আর আরাম থেকে অপরের পরিপূরক নয় যে যত বেশি সফল হয়েছে সেই ব্যক্তি তার কাজের পরিধি অনেক বেশি। তাই আপনি যদি জীবনের সফলতা অর্জন করতে চান? অবশ্যই আপনাকে আরাম কে হারাম ভেবে কাজের যোগদান করতে হবে।আর আমাম আয়েশ থেকে সহজেই সফলতা অর্জন করা সম্ভব নয় ।

জীবনে-সাফল্য-হতে-চান-আমরা যদি বিশ্ববিখ্যাত ধনী ব্যক্তি বিল গেট এর কথা মনে করি তাহলে তার জীবনী পড়ে দেখা যায় সে তার জীবনে আরাম আয়েশ বলতে কোন কিছু তার ছিল না।

 নেপোলিয়ন হিল এর একটা কথা আমরা সবাই জানি তিনি বলেছিলেন সাফল্য অর্জন করার কথা পরে ভাবুন- আগে বল সাফল্য অর্জনের জন্য তুমি জীবনে কি কি ত্যাগ করতে প্রস্তুত আছো।

জীবনে-সাফল্য-হতে-চান

৫। প্রতিনিয়ত নতুন কিছু শেখার অভ্যাস করতে হবেঃ

যে যত বেশি শিখবে তার তত বেশি বুদ্ধি বাড়বে। আর তাই শেখার প্রথম উপকরণ হচ্ছে বই।আমাদের উচিত প্রতি মাসে অন্তত ১/২ টি বই পড়া।ধরে নিন আপনার কোন এক সময় নাচ শিখতে ইচ্ছে করেছিল,সেটি আপনি কখনোই করতে পারেননি।

আপনার ইচ্ছা হচ্ছে নাচটা শিখে ফেলুন বয়স  সমস্যাই নয় ,মনের বয়স সব সময় ১৬ই ধরে আপনি আপনার জীবন অতিবাহিত করতে শিখুন। আপনার নিজের ইচ্ছার উপরে যদি কোন কিছু কাজ বা সময় পাঠান তাহলে দেখবেন আপনার কাজের  আগ্রহ বেড়ে গেছে।

৬। ঘুমানোর আগেই অবশ্যই ফোন বন্ধ রাখতে হবেঃ 

এখনকার সময় বেশিরভাগির মানুষ ফোন ছাড়া চলতে পারে না ফোন হাতে নিয়ে ঘুমাতে এমনকি টয়লেট পর্যন্ত নিয়ে যায়। আপনাকে ঘুমানোর আগেই কমপক্ষে আপনার ঘরের লাইট এবং মোবাইল বন্ধ রাখতে হবে। কারণ আপনি যদি দীর্ঘদিন কোন পাশে নিয়ে ঘুমান এভাবে দিনের পর দিন চলতে থাকলে ডাক্তারের গবেষণায় দেখা গেছে মস্তিষ্কের ক্যানসার হয়ে থাকে।

জীবনে-সাফল্য-হতে-চান-ঘুমানোর আগে সব সময় ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে ঘুমাতে হবে, এবং ভাবতে হবে প্রকৃতির কাছে খুশিতে মানুষ তার কৃতজ্ঞ জ্ঞাপন করা। ঘুমানোর আগে অবশ্যই আপনাকে দশ মিনিট সুন্দর কথাগুলো মনে করে আনন্দের সহিত ঘুমাতে যাওয়া উচিত এতে করে আপনার শরীর স্বাস্থ্য উভয় ভালো থাকবে।

৭। একসাথে একাধিক কাজ করা থেকে বিরত থাকতে হবেঃ

যে কাজটিতে হাত দিয়েছেন সে কাজ আগে সম্পন্ন করে নিন। কোন কাজ করার আগে অবশ্যই আপনাকে পরিকল্পনা মাপিক কাজ করতে হবে। সাথে সাথে একসঙ্গে অনেক কাজ করতে গেলে আপনি কোন কাজে সমাপ্ত পারবেন না। কাজের ধরন যদি একই হয় তাহলে সে বিষয়টা আলাদা আর যদি আলাদা আলাদা হয়ে থাকে তাহলে আপনি সব কাজেই  জগাখিচুড়ি করে ফেলবেন।

 কারণ আপনি একসঙ্গে অনেক কাজ যদি করে থাকেন তাহলে কোন কাজই সম্পন্ন হবে না । এভাবেই কাজ করতে থাকলে আপনার মানসিক প্রীতি নষ্ট হয়ে যাবে ।এতে করে আপনি ছিটকে পড়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি হবে।

 ৮। সময়ের সঠিক ব্যবহার করা

সাফল্য অর্জনের পিছনে অন্যতম হচ্ছে সময়ের কাজ সময় করা। আর আপনি যদি সময়টাকে সঠিকভাবে পরিচালনা করতে পারেন, তাহলে আপনি সহজে সাফল্য অর্জন করতে সক্ষম হবেন। আপনি কোথায় কখন কত সময় ব্যয় করবেন সবকিছুই হিসাব করে চলতে হবে।


জীবনে সাফল্য অর্জন করতে গেলে এক সেকেন্ডের সময়ও আপনাকে বিফলে দেওয়া যেতে যাবে না আপনাকে ঘুম থেকে উঠার পরেই রুটিন মাফিক আপনার জীবন পরিচালনা করতে হবে। আপনাকে মনে রাখতে হবে সাফল্য কোন গাছের ফল বা ফুল নয় যা গাছের ডুগা একটু ধপ করে আপনি পেতে পারেন। তাই আপনাকে সাফল্য পেতে গেলে অবশ্যই কঠিন নিয়মের মাঝে আপনাকে ফল পেতে হবে।

 ৯। সময় নষ্ট না করে শুরু করতে হবে এখুনিঃ

জীবনে-সাফল্য-হতে-চান-আপনি কাজ করার সময় দিন খন ঠিক না করে,যদি আপনার মাথায় প্লান থাকে কাজ করার তাহলে সময় নষ্ট না করে,ভয় না করে কাজে নিজেকে নিয়োগ কর। 

পৃথিবীর প্রতিটি মানুষ সফলতা পেত যদি ভয় না পেত। কারন ভয় নামক শত্রু তার মাঝে বাসা বেধে বসে আছে। তাই জিবনে সাফল্য পেতে হলে ভয়কে -জয়ে রুপান্তিরিত করতে পারলেই আপনি সহজেই সাফল্য পাবেন।

 ১০। সব সময় বড় স্বপ্ন দেখতে হবেঃ

সাফল্য পেতে গেলে অবশ্যই আপনাকে বড় বড় স্বপ্ন দেখতে হবে, যাতে করে আপনার বুক কেপেঁ উঠে। স্বপ্ন দেখো এবং সে অনুযায়ী নিজেকে তৈরি করতে পারলে আপনি সহজেই সাফল্য অর্জন করতে পারবেন। দেখবেন আপনি বড় বড় স্বপ্ন দেখতেছেন ছোট ছোট স্বপ্নগুলো অনায়াসে পূরণ হয়ে আসতেছে যা আপনি কখনোই চিন্তা করেননি।

স্বপ্ন বেশিরভাগ মানুষই নেই সত্যি হয় না তার কারণ হচ্ছে আমরা অনেক তাড়াহুড়া করি কাজে নেমে যাই, অথবা কাজ করি না না করি এটি নয় আমরা বেশিরভাগ চুপ করে বসে থাকি। আপনাকে সাফল্য অর্জন করতে হলে অবশ্যই কাজের কোন বিকল্প মনে করা যাবে না।

  ১১। নিজেকে আত্মবিশ্বাসী করে গড়ে তুলতে হবে

 আপনাকে সাফল্য অর্জন করতে গেলে অবশ্যই নিজের উপরে আত্মবিশ্বাস থাকতে হবে এবং অটুট বিশ্বাস স্থাপন করতে হবে যে আমি পারবো আমার দ্বারা সম্ভব।  কারণ যখন আপনি আপনার মনের ভিতরে আত্মবিশ্বাস একদম অটুট থাকবে তখন ঠিকই সাফল্য আপনাকে ধরা দিবে তাই আত্মবিশ্বাসকে এড়িয়ে এক বিন্দু পরিমাণও সামনে চলার সম্ভব হবে না।

জীবনে-সাফল্য-হতে-চান

 ১২। ভুল থেকে শিক্ষক গ্রহণ

পৃথিবীতে প্রতিটি মানুষেরই কোন না কোন ভুল থাকে সেটা যে কোন মাধ্যমেই হোক না কেন ভুল হওয়াটা স্বাভাবিক। আর আপনার যেখানে ভুল হবে সেখান থেকে আপনাকে শিক্ষা গ্রহণ করে সামনের দিকে এগিয়ে নেওয়া হচ্ছে সাফল্যের সিঁড়ি।

জীবনে-সাফল্য-হতে-চান- স্যার টমাস আলফা এডিশন এর কথা অবশ্যই মনে আছে তিনি তার জীবনে ১০০০০ বার ব্যর্থ হয়ে তার পরের জীবনে সাফল্য অর্জন করতে সক্ষম হয়েছিলেন। তাইতো তিনি বলেন আমি ১০০০০ বার ব্যর্থ হইনি আমার কাজটি শিখতে সময় লেগেছে দশ হাজার বার।             

 ১৩। সবার আগে স্বাস্থ্যকে নিয়ে ভাবতে হবে

আপনি জীবনে যে কাজটি করতে জানেন না কেন আপনার শরীর যদি ভালো না থাকে, তাহলে আপনার মন কখনো ভালো থাকবে না। আর এজন্য আপনি কখনো কোনো কাজেই আপনার মন বসবে না তাই কোন কাজ করার আগেই আপনাকে অবশ্যই আপনার শরীর মন ঠিক আছে কিনা সে দিক থেকে নজর দিতে হবে।

কারণ স্বাস্থ্যের সকল সুখের মূল,  আপনার স্বাস্থ্য হচ্ছে জীবনের মূল সম্পদ।আপনার যদি অনেক সম্পদ থাকে আর যদি স্বাস্থ্য ভালো না থাকে তাহলে কোন কাজেই আপনার টাকা পয়সা দিয়ে কাজে আসবে না।

পফ তারকা মাইকেল জ্যাকসনের কথা মনে আছে ,সব সময় চেয়েছিলেন তার ধনসম্পদ এর বিনিময়ে দেড়শ বছর বাঁচার, কিন্তু তিনি তার এই অর্থ ব্যয় করেও স্বাস্থ্যকে অবহেলা করে আসছিলেন শুধু অর্থ যে মানুষের জীবন বাঁচাতে পারে না তার জ্বলন্ত উদাহরণ মাইকেল জ্যাকসন। 

১৪। যে কাজটি করবেন মনোযোগ সহকারে করবেন

জীবনের সাফল্য অর্জন করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে যে কাজটি করতে হবে, সেটি হল আপনি যে কাজটি করতেছেন সেটি আসলে মনোযোগ সহকারে করতে পারতেছেন কিনা সেই দিক থেকে আপনাকে অবশ্যই মনোযোগ আকর্ষণ করতে হবে।

জীবনের  সাফল্য লাভ করতে হলে  যখন যে কাজটি করতে হবে তখন সেই কাজটি মনে প্রাণে উজার করে দিয়ে  কাজটি করতে হবে তাহলে দেখবেন আপনি সহজেই সাফল্য অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন। https://www.google.com

সমাপনীঃ যতক্ষণ শ্বাস ততক্ষণ আশ , এই কথাটিকে সামনে রেখে আপনার জীবনকে পরিবর্তন করতে চাইলে। এবং জীবনের সাফল্য অর্জন করতে চাইলে সঠিক সময় মনে প্রানে ধৈর্য সহকারে আপনাকে সেই কাজটি করতে হবে। তাহলে আপনি সহজেই কামিয়াবি হাসিল করতে পারবেন। আপনি গরিব কিংবা ধনী সেটা কোন বিষয় নয়, এটি কতটা কাজ মনোযোগী সেটাই হচ্ছে মূল বিষয়। যে ব্যক্তি সময়ের মূল্য দিতে পারে, সে ব্যক্তি জীবনের সাফল্য অধিকারী। গরিব হয়ে  জন্ম নেওয়া পাপের নয়, গরিব থেকে মরে যাওয়াটাই হচ্ছে পাপের, গরীব থেকে জন্ম নিয়েছি সেটা বাপের দোষ, কিন্তু গরিব অবস্থায় মরলে সেটা নিজের দোষ।তাই আসুন আমরা সকলেই জীবনে সাফল্য অর্জন করতে চাইলে অবশ্যই আমাদের কঠিন অধ্যবসায় থাকতে হবে। আজকের মত এখানেই শেষ করছি ভালো লাগলে অবশ্যই  প্রিয়জনের কাছে শেয়ার করতে ভুলবেন না। আল্লাহ হাফেজ।

 

     

 

                  

admin

মোঃ শফিকুল ইসলাম লেবু (Lecturer) ডালিয়া, ডিমলা, নীলফামারী। আমি বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক বিষয়ে কন্টেইন ও ব্লগিং পোষ্ট করে থাকি, এ ব্যাপারে পাঠকগন মতামত দিলে - যথাসম্ভব উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *