ভ্রমন

ট্রেনের টিকিট অন লাইনে কাটতে যা যা লাগে?

সম্মানিত  ট্রেন ভ্রমণ পিপাসু যাত্রী  ভাই ও বোনদের প্রতি রইল সালাম আসসালামু আলাইকুম ও আদাব । আর তাইতো ট্রেনের টিকিট কাটার জন্য দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে আপনার মূল্যবান সময়  নষ্ট করে থাকেন।  বাংলাদেশ সরকার সকল নাগরিকদের জন্য অনলাইন ই-সেবা টিকিট  ব্যবস্থা করেছেন।  আপনি ঘরে বসেই অনলাইনে টিকিট কিভাবে সংগ্রহ করবেন সেই সম্পর্কে আপনাদের অবগত করব । 

ট্রেনের টিকিট অন লাইনে কাটতে যা যা লাগেhttps://daliatista.com/বাংলাদেশের রেলওয়ের একটি প্রতিপাদ্য স্লোগান হচ্ছে ( টিকিট যার ভ্রমণ তার) এই প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে বাংলাদেশ সরকার অনলাইন টিকিট সিস্টেম চালু করেছে যা সহজেই একজন মানুষ টিকিট সংগ্রহ করতে পারবে আশা করি আপনারা ভালোভাবে মনোযোগ সহকারে পড়তে পারেন তাহলে সহজে আপনি ঘরে বসেই আপনার কাঙ্খিত সেবাটি পেতে  পারেন। নিম্নে ট্রেনের টিকিট অনলাইনে কিভাবে কাটবেন তার সুনির্দিষ্ট বর্ণনা দেওয়া হলো-

যেভাবে অনলাইনে ট্রেনের টিকিট কাটবেনঃ

১ম পর্যায়ঃ টিকিট যার ভ্রমণ তারঃ

https://eticket.railway.gov.bd  এই ওয়েবসাইডে প্রবেশ করতে হবে তার পর আপনাকে রেজিষ্টার করার জন্য লগ ইন করতে হবে। অতপর একটি একাউন্ট তৈরী করতে হবে।একাউন্ট হয়ে গেলে আপনাকে Rail Sheba – sign in করতে হবে।

২য় পর্যায়ঃ আপনার এন আইডি নাম্বার দিয়ে জন্ম তারিখ লিখে Verify বাটনে ক্লিক করতে হবে।যদি আপনার সকল তথ্য সঠিক হয় তাহলে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হবে।আর যদি আপনার এন আইডি দিয়ে আগে নিবন্ধন করা থাকে তাহলে ইতিমধ্যে রেজিস্ট্রেশন করা আছে দেখাবে। ইমেল এড্রেস খুলতে হবেঃ 

ট্রেনের টিকিট অন লাইনে কাটতে যা যা লাগে

আপনাকে মনে রাখতে হবে যে রেলের ই- টিকিট কেনার জন্য অবশ্যই একটি ইমেল এড্রেস একাউন্ট খুলতে হবে।

অফলাইনে অর্থাৎ এস এম এস এর মাধ্যমে নিবন্ধন প্রক্রিয়াঃ

আপনার মোবাইল ফোনের মেসেজ অপশনে গিয়ে টাইপ করতে হবে- BR – /space> NID নাম্বার space> জন্ম তারিখ ,জন্মের সাল/মাস/দিন দিয়ে একটি এসএমএস সেন্ড করতে হবে ২৬৯৬৯ নম্বরে সফল হবে মেসেজ চলে গেলে ফিরতি একটি এসএমএস আসবে সেই এসএমএসের মাধ্যমে নিবন্ধন সঠিক হয়েছে কিনা তা আপনার মেসেজে প্রদর্শিত হবে। আর নিবন্ধনের ক্ষেত্রে কিছু শর্ত রয়েছে তা আপনাকে অবশ্যই মেনে চলতে হবে-

যদি আপনি ১৮ বছরের নিচের বয়স সম্পন্ন হয়ে থাকেন তাহলে পিতা-মাতার এনআইডি দ্বারা নিবন্ধন করতে হবে অথবা আপনার জন্ম নিবন্ধন নম্বর দিয়ে নিবন্ধন একাউন্টটি পৃথক টিকিট ক্রয় করতে পারবেন এর ক্ষেত্রে যাত্রী নামের সঙ্গে তার সম্পর্ক যাচাইয়ের সময়ে জন্ম নিবন্ধন নাম্বার মূল কপি অথবা ফটোকপি সঙ্গে রাখতে হবে।

৩। রেলের টিকিট কাটার জন্য কোন বিদেশি নাগরিক হয়ে থাকেন তাহলে, তার পাসপোর্ট নম্বর ও পাসপোর্ট এর ছবি ইনপুট দেওয়ার মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন বলে বিবেচিত হবে।

৪।ট্রেন ভ্রমণের সময় যাত্রীকে অবশ্যই তার নিজস্ব  এনআইডি অথবা জন্ম নিবন্ধন কপি ও পাসপোর্ট সম্বলিত আইডি কার্ড সাথে রাখতে হবে। 

৫। ট্রেনভ্রমণ কালে যাত্রী পরিচয়পত্রের সঙ্গে টিকিটের উপরে যে যাত্রী নাম যে সকল তথ্য-উপাত্ত আছে যদি মিল না থাকে তাহলে বিনয় টিকিট ভ্রমণের দায়ে রেল কর্তৃপক্ষ রেল আইন অনুযায়ী আপনাকে শাস্তি ভোগ করতে হবে।

৬। দেশের সকল নাগরিকদের জন্য ২০২৩ সালের ১৬ই ফেব্রুয়ারি থেকে জাতীয় পরিচয় পত্র অথবা জন্ম নিবন্ধন ও পাসপোর্ট নম্বর দিয়ে রেলের নিবন্ধন প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ কার্যক্রম পরিচালনার মাধ্যমে সুসম্পন্ন হয়।

৭। তাই দেশের প্রতিটি বিভাগীয় শহরে রেলস্টেশন ও আন্তঃনগর ট্রেনের স্টেশনগুলোতে সর্বসাধারণের সুবিধার্থে নিবন্ধন সহযোগিতা করার জন্য একটি করে হেল্প ডেক্স স্থাপন করা হয়েছে।

বুকিং দেওয়ার পর আপনাকে অনলাইনে প্রেমেন্ট সম্পূর্ণ করতে হবে সে ক্ষেত্রে সিট অনুযায়ী আপনার ভাড়া কমবেশি হতে পারে। অনলাইন পেমেন্ট সিস্টেমে টাকা দেওয়ার জন্য আপনাকে মোবাইল ব্যাংকিং ক্রেডিট কার্ড ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে টিকিট বুকিং দিতে পারেন। এভাবে আপনার টাকা কেটে নেওয়ার পরে আপনার নিজের নামেই একটি টিকিট শো করবে যা আপনি মোবাইলে সেভ অথবা  প্রিন্ট করে নিতে পারবেন। ট্রেনে উঠার সময় টিকিট সঙ্গে রাখতে হবে। https://www.jagonews24.com/

টিকিট যার ভ্রমণ তারঃ

টিকিট যার ভ্রমণ তারঃ বাংলাদেশ রেলওয়ে সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জাতীয় পরিচয় পত্র অথবা জন্ম নিবন্ধন সনদ যাচাইয়ের মাধ্যমে আন্তঃনগর ট্রেন গুলি টিকিট সরবরাহ করে থাকে রেলের কর্মকর্তারা পয়েন্ট অফ সেল মেশিনের মাধ্যমে টিকিট সনাক্ত করে থাকেন।

যদি কোন ব্যক্তি অন্যের জাতীয় পরিচয় পত্র দিয়ে টিকিট কেটে ভ্রমণ করতে চান তাহলে অবশ্যই তাকে ব্যবস্থায় আবদ্ধ করা হবে।  তাই টিকিট জার ভ্রমণ তার। 

সমাপনীঃ  রেলওয়ে বাংলাদেশে সবচেয়ে নিরাপদ এবং আরামদায়ক  পরিবহন হিসেবেই ধরা হয়।তাই আপনি ইচ্ছা করলেই দেশের যেকোনো প্রান্তে অনায়াসে রেলওয়ে হয়ে যাওয়া -আসা করতে পারবেন। উপরে উল্লেখিত যে সমস্ত অনলাইনে ট্রেনের টিকিট কাটার টেকনিক দেওয়া হইলো যা যথাযথভাবে অনুসরণ করলে আপনি সহজেই অনলাইনে টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন। ধন্যবাদ

admin

মোঃ শফিকুল ইসলাম লেবু (Lecturer) ডালিয়া, ডিমলা, নীলফামারী। আমি বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক বিষয়ে কন্টেইন ও ব্লগিং পোষ্ট করে থাকি, এ ব্যাপারে পাঠকগন মতামত দিলে - যথাসম্ভব উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *