সংবাদ সমাচার

বিধবা ভাতার আবেদন, বর্তমানে অনলাইনে আবেদন করা যাচ্ছে !

বিধবা-ভাতার-আবেদন- আপনি জানেন কি? বাংলাদেশ সরকার বর্তমান সময়ে স্বামী পরিত্যক্তা ও বিধবা মহিলাদের জন্য বিধবা ভাতার আবেদন,সরকার অনলাইনে আবেদন পূরণ করার জন্য প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। আমাদের আশেপাশে অনেক বিধবা ও স্বামী নিগৃহিতা মহিলা আছে যা তারা অনেক সমস্যার সম্মুখীন হয়ে থাকে বিধবা ভাতা কার্ড তৈরি করার জন্য। তাই আমি আজকে আমার এই আর্টিকেলটিতে বিধবা ও স্বামী পরিত্যাক্তা মহিলাদের জন্য কিভাবে অনলাইনে বিধবা ভাতা কার্ডের জন্য অনলাইনে আবেদন করবেন, সেই সম্পর্কে আপনাদেরকে অবগত করব। আপনাদের উপকারে আসবে। তাহলে চলুন দেখে নেয়া যাক বিধবা ভাতা আবেদনের নিয়মাবলী।

বিধবা ভাতা কি ?

বিধবা হচ্ছে সেই সমস্ত মহিলা যারা তাদের স্বামীকে হারিয়েছে অথবা স্বামীর নিগৃহীত  হয়ে জীবন যাপন করে আসতেছে তাদের সুরক্ষার জন্য সরকার তাদের আর্থিক স্বচ্ছলতা আনার জন্য গৃহিত পদক্ষেপ।

বিধবা ভাতা কার্ড সংশোধন

আগে বিধবা ভাতার জন্য এ সমস্ত সুবিধাভোগী বিধবা আছে তাদের আবেদন নিজ নিজ ইউনিয়ন থেকে সংগ্রহ করে থাকতো ।এবং সেখান থেকে তারা সুবিধা নিত। বর্তমান সময়ে এই সমস্ত সনাতন পদ্ধতি তুলে দিয়ে বর্তমানে সরকার অনলাইনে বিধবা ভাতার প্রচলন চালু করেছে তা সহজেই একজন বিধবা তার সুবিধাভোগী কার্ডটি সংগ্রহ করতে পারবে। https://daliatista.com

কিভাবে বিধবা ভাতার আবেদন করবেন ?

সর্বপ্রথম বিধবা ভাতার আবেদন করার জন্য আপনাকে যে কোন একটি ওয়েব ব্রাউজারে প্রবেশ করতে হবে এবং সেখানে লিখতেহবে- https://mis.bhata.gov.bd/onlineApplication

বিধবা ভাতা আবেদন করার জন্য সর্বপ্রথম এই লিংকে আপনাকে প্রবেশ করতে হবে। এবং সকল তথ্য দিয়ে আবেদন পূরণ করতে হবে এবং আবেদন কমিটি প্রিন্ট করে আপনাকে অবশ্যই আপনার ওয়ার্ডের মেম্বার এবং আপনার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান স্বাক্ষর নিয়ে উপজেলা সমাজসেবা অফিসে অবশ্যই জমা দিতে হবে।

বর্তমানে বিধবা ভাতার পরিমান কত ?

বিধবা-ভাতার-আবেদন-  বর্তমানে বিধবা ভাতা কর্মসূচিতে বিধবা মহিলাদের জন্য স্বামীর মৃত্যু সনদ এবং বার্ষিক গড় আয় অবশ্যই ১০ হাজার টাকা হতে হবে। বর্তমানে জন প্রতি ৫৫০ টাকা হারে প্রতি মাসে প্রদান করা হয়।

আগে বিধবা ভাতা টাকা তোলার জন্য সারা ইউনিয়ন পরিষদে এখানে সেখানে ঘুরে সময় অনেক অতিবাহিত হতো।

আর বর্তমান সময়ে বিধবা ভাতা টাকা মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে সহজেই যে কোন ঝামেলা ছাড়াই ঘরে বসে হাতে পাওয়া সম্ভব। 

অবশ্যই মনে রাখতে হবে ইতিপূর্বে যারা ভাতা পাচ্ছেন তাদের নতুন করে আবেদন করার কোন প্রয়োজন নেই। যারা নতুন তাদের জন্য শুধু অনলাইনে আবেদন করতে হবে।

এই ভাতা কাদের জন্য প্রযোজ্য

বিধবা-ভাতার-আবেদন-বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক প্রধানকৃত একটি সামাজিক উন্নয়নমূলক ভাতা যা আমাদের সমাজে বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা মহিলাদের জন্য প্রযোজ্য। তবে যাদের স্বামী মারা যাওয়ার পরেও পরিবারের আর্থিক অবস্থা ভালো তারা এই ভাতার জন্য আবেদন করতে পারবে না।

এটি মূলত বিধবা ও স্বামী নিগৃহিতা মহিলা ভাতা বলে আখ্যায়িত করা হয়। সমাজের মধ্যে যারা আর্থিকভাবে দুর্বল, হতদরিদ্র, নিম্ন দরিদ্র ও স্বামীহারা নারীদের ঠিক ভাবে সাহায্য করার জন্য এই ভাতা প্রদান করা হয়।

বিধবা-ভাতার-আবেদন

এই ভাতার জন্য অনলাইনে আবেদন করতে কি কি ডকুমেন্ট লাগে ?

  • জাতীয় পরিচয়পত্রের মূল কপি
  •  স্বামীর মৃত্যুর সনদ প্রমাণপত্র
  •  আবেদনকারীর দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ফটো
  •  সচল মোবাইল নাম্বার 
  • মোবাইল ব্যাংকিং (যেমন নগদ বিকাশ রকেট উপায় ইত্যাদি)
  •  বিধবা ভাতার পূরণ করা আবেদন পত্রটি

কিভাবে বিধবা ভাতা অনলাইনে আবেদন পূরণ করবেন ?

অনলাইনে আবেদন করার জন্য নিজের ধাপ গুলো অনুসরণ করতে হবে। যে কোন একটি ব্রাউজারে প্রবেশ করে এই ঠিকানাটি দিতে হবে- 

https://mis.bhata.gov.bd/onlineApplication;

ধাপ – ১ যেতে হবে

যে কোন একটি ওয়েব ব্রাউজারে প্রবেশ করতে হবে

ধাপ – ২  যেতে হবে – এখানে  এনআইডি নম্বর ও জন্ম তারিখ দিয়ে যাচাই করতে হবে।

বিধবা ভাতার জন্য আপনার বয়স উপযুক্ত আছে কিনা বাকি সব তথ্য পূরণ করতে হবে এসব তথ্যের মধ্যে রয়েছে শিক্ষাগত যোগ্যতা বৈবাহিক অবস্থা পেশা বার্ষিক আয় বাসস্থান সংক্রান্ত সকল তথ্য দিতে হবে।

ধাপ ৩- মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্ট নম্বর ও ঠিকানা দিতে হবে

এখানে আপনাকে যোগাযোগের ঠিকানা বর্তমান স্থায়ী ঠিকানা সিলেক্ট করে দিতে হবে। প্রথমে বিভাগ জেলা উপজেলা ইউনিয়ন ওয়ার্ড এভাবে ধাপে ধাপে সিলেক্ট করে আসতে হবে।

অতঃপর মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে আপনার এলাকায় ভাতা প্রদান করা হবে যেখানে দেখতে পারবেন, বিকাশ নগদ  রকেট একাউন্ট।আপনার সুবিধামতো যে মোবাইল ব্যাংকিং এ একাউন্ট আছে সেই অ্যাকাউন্ট নাম্বারটি সেখানে ইনপুট করতে হবে। https://www.google.com

সবশেষে বিধবা ভাতা আবেদনের যোগ্যতা ও শর্ত সম্বলিত সকল কিছু তথ্য পূরণ করে দিতে হবে। অতঃপর এর তথ্যগুলো দেওয়ার পরে ডানদিকে সংরক্ষণ বাঁধন আছে সেখানে ক্লিক করে আবেদনটি সংরক্ষণ করে রাখতে পারবেন।

ধাপ ৫ঃ আবেদন ফরমটি জমা দিন

অতঃপর আবেদন ফ্রমটি যখন আপনি প্রিন্ট করবেন ,আবেদনের প্রিন কবিতে আপনার ওয়ার্ড মেম্বার কাউন্সিলর, অথবা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর ও সুপারিশপত্র নিয়ে উপজেলা সমাজসেবা অফিসে জমা প্রদান করতে হবে।

মনে রাখতে হবে আবেদনপত্রের সাথে অবশ্যই আপনার ছবি এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ জমা  করতে হবে।

 সমাপনীঃ বিধবা ভাতার জন্য অনলাইনে যে সমস্ত তথ্য আপনাদের মাঝে প্রদান করা হলো এভাবে যদি আপনি উপরোক্ত ধারগুলো ভালোভাবে অনুসরণ করেন তাহলে খুব সহজেই আপনি অনলাইনে বিধবা ভাতার জন্য আবেদন করতে সক্ষম হবেন। আশা করি আপনারা সকলেই ভালোভাবে আমার এই আর্টিকেলটি বুঝতে পেরেছেন। যদি আপনার ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই আপনার বন্ধু বান্ধবের কাছে শেয়ার করতে ভুলবেন না আজকের মত এখানেই শেষ করছি সবাইকে ধন্যবাদ।

admin

মোঃ শফিকুল ইসলাম লেবু (Lecturer) ডালিয়া, ডিমলা, নীলফামারী। আমি বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক বিষয়ে কন্টেইন ও ব্লগিং পোষ্ট করে থাকি, এ ব্যাপারে পাঠকগন মতামত দিলে - যথাসম্ভব উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *