স্বাস্থ্য

মজাদার স্বাদের খাবারের রেসিপি- 

মজাদার স্বাদের খাবারের রেসিপি- কন্টেইনটি লেখা।পৃথিবীতে সবারই  মজাদার খাবারের প্রতি আকর্ষণ কমবেশি  থাকে।  তাই তো একই খাবার একেক জন একেক ধরনের রেসিপি করে খেতে ভালোবাসে। বিভিন্ন জন বাহারি রঙের স্বাদের খাদ্য তৈরি করে থাকে যা আমরা বিভিন্ন জায়গায় এসব খাবার খেয়ে থাকি তাই আজকে আমি মজাদার তাদের খাবারের রেসিপি নিয়ে আমার কন্টেনটি লেখা যা আশা করি আপনাদের জন্য ভাল লাগবে। নিম্নে মজাদার স্বাদের খাবারের রেসিপি- বিভিন্ন আকারে প্রকাশ করা হলো।

ইলিশ মাছের ডিমের পাতুরি 

 মজাদার স্বাদের খাবারের রেসিপি

যেসব উপকরণ প্রয়োজন হবে ?

আপনাকে প্রথমেই ইলিশের ডিম আস্ত দুই টুকরা নিতে হবে, অতঃপর হলুদ গুঁড়া আধা চা চামচ, টক দই এক টেবিল চামচ, পোস্ত দানা এক টেবিল চামচ, লবণ স্বাদমতো, সরিষার তেল আধা কাপ, কালো  সরষে ১  টেবিল চামচ, সাদা সরষে ১ টেবিল চামচ, কলার পাতা টুকরা করে কেটে নেওয়া ৪/৫ টি, কাঁচা মরিচ ১০ টির মত লাগবে।

যেভাবে প্রস্তুত করবেন ?

প্রথমে দুই ধরনের সরষে ভালো করে ধুয়ে  আধা ঘন্টা ভিজিয়ে রাখতে হবে। অতঃপর এগুলো    ছেকে নিকত হবে। প্রস্থ দানা ৪/৫ টি, কাঁচামরিচ, লবণ, হলুদ, দিয়ে ভালো করে বাটনাতে বেটে নিতে হবে। একটি পাত্রে ডিমের টুকরোগুলো নিয়ে সরষে বাটা ও টক দই সর্ষের তেল দিয়ে ভালো করে মাখা মাখি করতে হবে। কলাপাতা গুলো কেটে নিন ভালো করে ছেঁকে নিতে হবে । এবার কাঁচা মরিচ দিয়ে দিন বেঁধে রাখা কলার পাতাগুলো দিয়ে অল্প আছে ঢেকে রাখুন। মাঝেমধ্যে উল্টিয়ে দিতে হবে, পাতার রং পরিবর্তন হলে ১৫ থেকে ২০ মিনিট পরে নামিয়ে ফেলতে হবে অল্প আচ দিয়ে। দেখবেন সহজেই আপনার ইলিশ মাছের পাতুরি তৈরি হয়ে গেছে যা সহজে আপনি স্বাদের খাবার টি তৈরি করতে পেরেছেন।

ইলিশ মাছের মালাইকারি  রান্না করবেন যেভাবে ?

কিভাবে প্রস্তুত করবেন ?

  • ইলিশ মাছ মাঝারি আকারের ১ টি,
  •  টক দই সিসি কাপ, নারকেলের
  •  দুধ দু কাপ, 
  • আদা বাটা ১ চা চামচ,
  •  জিরা বাটা আদা চা চামচ
  • পেঁয়াজ বাটা এক টেবিল চামচ,
  • কাঁচা বাদাম এক টেবিল চামচ,
  •  কিসমিস বাটা এক টেবিল চামচ, 
  • হলুদ গুঁড়া আধা চা চামচ, 
  • মরিচ গুড়া এক চা চামচ, 
  • কাঁচামরিচ ফালি চার পাঁচটি, 
  • পেঁয়াজকুচি এক কাপ 
  • পেঁয়াজ বেরেস্তা সিসি কাপ, 
  • লবণ পরিমাণ মতো
  •  চিনি ২ চা চামচ, 
  • তেল পৌনে এক কাপ লাগবে।
  • https://daliatista.com

প্রস্তুত প্রণালী-

আপনাকে প্রথমে তেল গরম করে পেঁয়াজ ভাজতে হবে পেয়াজ নরম হলে, সমস্ত বাটা মসল্লা গুড়া মসলা কষিয়ে মাছ টক দই ও লবণ দিয়ে কিছুক্ষণ ভুনা নারিকেলের দুধ দিন ঝোল কমে  দিয়ে নামাতে হবে। 

ডিমের মালাইকারি

আমাদের বাসা বাড়িতেই মাছ-মাংস না থাকলেও ডিম কিন্তু কম-বেশি সবার বাসায় পাওয়া যায় তাইতো ডিমের মালাইকারি খাদ্য হিসেবে আপনি সহজে বাসায় তৈরি করতে পারবেন।

 মজাদার স্বাদের খাবারের রেসিপি

ডিমের মালাইকারি তৈরি করবেন যেভাবে ?

  • সর্বপ্রথম চারটি ডিম নিতে হবে,
  •  পেঁয়াজ বাটা ২ চা চামচ
  • ধুনিয়া গুড়া ১ চা চামচ
  • রসুন বাটা ১  চা চামচ
  •  আদা বাটা ১ চা চামচ
  •  বাদাম বাটা ২ চা চামচ 
  • হলুদ গুঁড়া ১ চা চামচ
  •  নারিকেল দুধ হাফ কাপ
  •  টমেটো কুচি হাফ কাপ
  • মরিচ গুঁড়া চা চামচ
  • তেল ৩ চা চামচ
  • লবণ স্বাদ অনুযায়ী
  • কাঁচা মরিচ বাটা ১ চা চামচ
  • জিরা গুড়া ২ চা চামচ
  • গরম মসলা ১ চা চামচ
  • ধনেপাতা সাজানোর জন্য

রেডি করবেন যেভাবে ?

  ১) প্রথমে ডিম সিদ্ধ করে নিয়ে দু’ভাগ করে কেটে আলাদা পাত্রে রাখতে হবে

 ২) একটি প্যানে তেল গরম করে তাতে পেঁয়াজ বাটা রসুন বাটা আদা বাটা দিয়ে ভালোভাবে কষিয়ে নিতে হবে একটু পানি যোগ করতে পারেন যাতে     মসল্লাগুলো না পড়ে যায়।

৩) এবার এতে লবণ হলুদ গুঁড়ো মরিচ, গুঁড়ো, ধনিয়া গুঁড়ো, টমেটো কুচি, কাঁচা মরিচ, বাটা দিয়ে দিতে হবে মাঝারি আঁকা আছে সময় নিয়ে সব মসলাগুলো একসাথে ভুনা করে নিতে হবে।

৪) মনে রাখতে হবে ,মসলা বসানো হয়ে গেলে এতে নারিকেল দুধ ও বাদাম বাধা মিশিয়ে জাল দিতে হবে কিছুক্ষণ পরে  ঘন হয়ে আসবে।

 ৫) তারপর জিরা গুড়া কিছুক্ষণের জন্য মালাইকারি হালকা আচে  রাখতে হবে।

পটলের ভর্তা

ভর্তা বাঙ্গালীদের ঐতিহ্য একটি পছন্দের খাবার অনেকেই ভর্তা খেতে ভালোবাসে। সবার কাছে একই ভর্তা প্রিয় হয় না, তাইতো পটলের ভর্তা অনেকেই খেয়েছেন তো চলুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে পটলের ভর্তা অল্প সময়ের মধ্যে তৈরি করে খেতে পারবেন।

 মজাদার স্বাদের খাবারের রেসিপি

পটলের ভর্তা তৈরির পদ্ধতি

  • পটল সিদ্ধ খোসা ছাড়া  ১.৫ কাপ
  • চিংড়ি মাছ সিদ্ধ ৫/৬ টি 
  • সরিষা বাটা ১ চা চামচ
  •  রসুন একোয়া 
  • শুকনো মরিচ ভাজা ৩/৪ টি
  • পেঁয়াজকুচি ১.৫টেবিল চামচ
  •  লবণ পরিমাণ মতো 
  • ধুনিয়াপাতা স্বাদমতো

পটল ভর্তা তৈরি করবেন কিভাবে ?

১)  প্রথমে একটি পাত্রের সেদ্ধ পটল নিয়ে তাতে সরষে বাটা ও চিংড়ি মাছ সিদ্ধ দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে।

 ২) তারপর একটি প্যানে তেল গরম করে সেখানে পেঁয়াজ ও রসুন হালকা করে ভেজে নিতে হবে।

 ৪) মেশানো হয়ে গেলে শুকনা মরিচ লবণ ধনিয়া পাতা দিয়ে মাখিয়ে পরিবেশন করার উপযোগী  হয়ে যাবে যা আপনি পরিবার ও আত্মীয়স্বজনের মাঝে স্বাদের খাবারটি দিতে পারবেন।

 কুমড়া মাংস বড়া

কুমড়া তো আমরা সবাই কমবেশি খেয়ে থাকি।  কিন্তু কখনও কি মাংস কুমড়ার বড়া খেয়েছেন বা শুনে অবাক হয়ে গেলেন তাই না।  আজকে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব। 

কিভাবে তৈরি করা যায়

  • ৬  টুকরা কুমড়া
  •  ১ কাপ মুরগির মাংস ঝুড়ি করা
  •  ১/২ কাপ পিয়াজ
  •  ১ টেবিল চামচ কাঁচা মরিচ
  •  ১/২ চা চামচ আদা বাটা
  •  ১/২  চামচ রসুন বাটা
  • মরিচ হলুদ জিরা গুড়া সামান্য পরিমাণে
  • ১ টেবিল চামচ ধনিয়া পাতা,
  •  বেসন ১ চা চামচ 
  • চালের গুড়া 
  • লবণ স্বাদমতো 
  •  কর্ণ ফ্লাওয়ার ১/২ চা চামচ
  •  রান্নার জন্য তেল পরিমাণ মত
  •  পানি মিশাতে হবে

রান্না পদ্ধতি

৩) অতঃপর একটি ফ্রাই প্যানে তেল দিয়ে এর মধ্যে পেঁয়াজ, কাঁচামরিচ, কুচি, আদা, রসুন বাটা ,হলুদ, মরিচ, এবং ধনিয়া গুড়া দিয়ে ভাল ভাবে কষিয়ে নিতে হবে।

৪) এর মধ্যে মুরগির মাংস দিয়ে কিছুক্ষন নাড়াচাড়া করতে করে পানি দিতে হবে পরিমানমত।

৫। মাংস হয়ে গেলে নামিয়ে রাখতে হবে 

৬। এবার একটি বাড়িতে চালের গুড়া বেসন পানি সামান্য লবণ গুড়ো মরিচ আর আধা বাটা মাখিয়ে বানিয়ে নিতে হবে

 ৭। এরপর এই বাটারে কুমড়ার টুকরাগুলো মাকে ডুবো তেলে ভাজুন। 

৮। তাহলে হয়ে গেল আজকের এই কুমড়ার বড়া সহজেই তৈরি করে আপনি আপনার পরিবার ও আত্মীয় স্বজনের মাঝে এই স্বাদের খাবারটি খেতে পারেন। https://www.protidinersangbad.com

মোটকথাঃ উপরিক্ত মজাদার স্বাদের খাবারের রেসিপি- নিয়ে যেসব তথ্য উপাত্ত আলোচনা করা হলো যা আপনাদের কাজে লাগবে। আপনি বাসায় মজাদার রান্না করতে পারেন এবং আপনার আত্নীয় স্বজনকে সহজে আপনার কারিশমা দেখাতে ভুলবেন না। আজকের মত এখানেই শেষ করছি।

admin

মোঃ শফিকুল ইসলাম লেবু (Lecturer) ডালিয়া, ডিমলা, নীলফামারী। আমি বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক বিষয়ে কন্টেইন ও ব্লগিং পোষ্ট করে থাকি, এ ব্যাপারে পাঠকগন মতামত দিলে - যথাসম্ভব উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *