স্বাস্থ্য

রুপচর্চা করার সহজ উপায় ও কিভাবে ব্যবহার করবেন ?

রুপচর্চা করার সহজ উপায়-কেনা সুন্দর হতে চায় প্রত্যেকেরই আকর্ষণ তার চেহারাটা যেন দেখতে অত্যন্ত সুদর্শন আকর্ষণীয় হয় সেজন্যই আমরা রুপচর্চা করার সহজ উপায়- রূপচর্চার দিকে অগ্রসর হয়ে থাকি আর এই রূপচর্চার জন্য আমরা অনেকেই অনেক ধরনের কেমিক্যাল ক্রিম ও বিভিন্ন প্রকারের কসমেটিক্স প্রসাধনী ব্যবহার করে থাকি । এমন কি  পার্লারে গিয়ে রূপচর্চা করে থাকি তাই আজকে আমি রুপচর্চা করার সহজ উপায়- আমার এই কন্টেইনটিতে রূপচর্চা করার সহজ উপায় নিম্নে বর্ণনা করব।  https://daliatista.com

 

রূপচর্চা করার সহজ উপায় গুলি নিম্নরূপ

 শসার অ্যালোভেরা ফেসপ্যাক পদ্ধতি

কি কি উপাদান লাগবে ? 

  • ১ টেবিল চামচ অ্যালোভেরা জেল বা জুস 
  • ৪ ভাগের এক ভাগ গ্রেট করা শসা

কিভাবে ব্যবহার করবেনঃ

রুপচর্চা করার সহজ উপায়-প্রথমে আপনি গ্রেট করা শশার সাথে এলোভেরা জেল বা জুস যোগ করতে হবে অথবা এটি ভালোভাবে মেশাতে হবে এরপর এই মিশ্রণটি মুখে ও ঘাড়ে লাগাবেন এর জন্য আপনাকে ১৫ মিনিট পর গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে

কেন এটা উপকারী

মুখের জন্য শসা ও অ্যালোভেরা খুবই উপকারী এতে ভিটামিন এ ওসি এন্টিঅক্সিডেন্ট শসা ত্বকের মারাত্মক প্রশান্তিদায়ক এবং আপনার ত্বককে মশ্চারাইজিং এর দিকে নিয়ে যাবে ,এছাড়াও এটি মেলানিনের উপাদান কমাতে পারে। 

শসা ত্বকের যত্নে বিভিন্ন পণ্য রয়েছে যেমন, টোনার লোশন এবং ত্বকের ক্রিম। https://www.google.com

 রোদে পুড়ে যাওয়ার ত্বককে ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে শসা শুধু তাই নয় শসা সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকেও রক্ষা করতে পারে। আর এলোভেরা এবং শুষ্ক রেখে কমাতে কাজ করে।

বাদাম ও শসা ফেসপ্যাক

প্রস্তুত প্রণালী

  • অ্যাপ টেবিল চামচ বাদাম মাখন/ পাউডার/ তেল
  • ৪  ভাগের এক ভাগ শসা

প্রয়োগ করবেন যেভাবে?

আপনাকে প্রথমে যে কাজটি করতে হবে সেটি হচ্ছে শসার খোসা ছাড়িয়ে নিতে হবে এবং টুকরো টুকরো করে কেটে নিতে হবে এবার এতে বাদাম মাখন তেল মাগুরা দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে মিশ্রণটি তৈরি হয়ে গেলে মুখে লাগাতে পারবেন অথপর ১০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলতে হবে।  

কতটুকু উপকৃত হবেন

রুপচর্চা করার সহজ উপায়

ত্বকের জন্য বাদাম এক্সফোলিয়েন্ট হিসেবে কাজ করে থাকে এটি মুখের উপস্থিত ময়লা পরিষ্কার করে মুখের গভীরের ময়লাটুকু বের করতে সাহায্য করে। বাদাম দিয়ে তোকে মেসেজ করলে ত্বকের উন্নতির পাশাপাশি সূর্যের আলো থেকে রক্ষা পাওয়া যায় এবং এর সাথে শসার গুণাগুণ একত্রিত হলে এটি আরো অনেক কার্যকরী হয়ে থাকে।

বেসন ও শসার ফেসপ্যাক

 উপাদান সমুহ

  • ২ চা চামচ বেসন লাগবে
  • ২ থেকে ৩ চা চামচ শসার রস দিতে হবে

ব্যবহার করতে হবে যেভাবেঃ

 এক্ষেত্রে বেসন ও শসার রস যোগ করে একটি মসৃন পেষ্টে তৈরী করতে হবে। তারপর পেস্টটি মুখে ও ঘাড়ে সমান ভাবে লাগাতে হবে। এভাবে ২০ মিনিট রাখতে হবে মুখ শুকিয়ে যাওয়ারপর হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে।

উপকারিতাঃ বেসন সব সময়ই সৌন্দর্য বর্ধক পন্য হিসাবে কাজ করে থাকে। বেসন স্কিন টনিক হিসাবে ত্বক পরিষ্কার এবং এক্সফোলিয়েটিং আছে। এটি মুলত ত্বকের তেল পরিষ্কার করে থাকে।

দই ও শসার ফেসপ্যাক

যে সব উপাদান লাগবে 

  • ৪ ভাগের ১ ভাগ শসা
  • ২ টেবিল চামচ টক দই

প্রয়োগ বিধিঃ

শসা গ্রেট করে এর পাল্প বের করে নিন।এবার শশান পালভে দই দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে এই পেস্টটি আপনার মুখে লাগান অথবা ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে তেল মুক্ত এবং ব্রণ মুক্ত ত্বক শসার ফেসপ্যাক অত্যন্ত কার্যকরী।

যেভাবে লাভবান হবেন

 দুই অনেক ধরনের মানব শরীরের জন্য উপকারী যা ত্বকের জন্য উপকারী হয়ে থাকে দই ব্যবহার করলে ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা বাড়িয়ে তোলে । তাছাড়া এটি ত্বকের আদ্রতা ধরে রাখতে অত্যন্ত কার্যকরী ভূমিকা পালন করে এবং দুই ফেসপ্যাক হিসেবে ব্যবহার করলে বেশি উপকার পাবেন।

 গাজর এবং শসার ফেসপ্যাক

 উপাদান সমূহ

  • তাজা গাজরের এক চামচ রস
  •  এক চামচ শসার পেস্ট 
  • এক চা চামচ টক দই

প্রয়োগ বিধি তাজা গাজরের রস বের করে তাতে শসার পেস্ট যোগ করতে হবে উপাদান ভালোভাবে মিশ্রণ করে কৃমি রূপান্তর করতে হবে। মিশ্রণটি তৈরি হয়ে গেলে মুখে এবং ঘাড়ে ভালো করে লাগাতে হবে ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর হালকা গরম পানি দিয়ে ফেস প্যাকটি ধুয়ে ফেলতে হবে।

কতটা উপকারীঃ শসার পাশাপাশি তোদের জন্য গাজরের ব্যবহারও অনেক উপকার আসলে এতে বিটা ক্যারোটিন যথেষ্ট পরিমাণে আছে যা ত্বকের সূর্য রশ্মি থেকে রক্ষা করে এছাড়াও গাজরে পাওয়া লাইকোপিন ত্বকের রোদে পোড়া ও অক্সিডেটিভ ক্ষতি থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে।

টমেটো এবং শসার ফেসপ্যাক

যে সমস্ত উপাদান প্রয়োজন হবে 

  •  ৪ ভাগের এক ভাগ শসা 
  • অর্ধেক পাকা টমেটো

ব্যবহারবিধিঃ শসার খোসা ছাড়িয়ে প্রথমে টমেটোর সাথে চুলায় কষিয়ে নিতে হবে এই পেজটি মুখে ও ঘাড়ে লাগাতে হবে এরপর প্রায় দুই থেকে তিন মিনিট মুখে মেসেজ করতে হবে। তারপর ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে।

যেভাবে উপকার পাবেনঃ ত্বকের যত্নে মানুষ নানাভাবে উপকার পেয়ে থাকে তাই  টমেটোতে রয়েছে  ভিটামিন এ এবং সি পাওয়া যায় এই উপাদানগুলি মূলত ত্বকের জন্য অত্যন্ত মারাত্মক ভূমিকা পালন করে তাছাড়া শরীর কে সুস্থ রাখতে ভুমিকা সম্ভব হয়।

আলু এবং শসার ফেসপ্যাক

 উপাদানসমূহ 

  • এক টেবিল চামচ আলুর রস
  •  ১ চা চামচ শসার রস 

প্রয়োগ করবেন যেভাবেঃ 

আলুর রসে শসার রসে একসাথে মিশ্রণ করে এটি ভালোভাবে মেশাতে হবে মেশানোর পর তুলার সাহায্যে মুখে লাগাতে হবে প্রায় ১০ থেকে ১৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলতে হবে।

 ব্যবহারে কতটা লাভজনক ?

আলুর ব্যবহার ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়িয়ে তোলে প্রকৃতপক্ষে এতে ভিটামিন সি রয়েছে টিস্যু বৃদ্ধিতে ভূমিকা পালন করে থাকে আলোতে উপস্থিত ভিটামিন সি ভিটামিন বি কমপ্লেক্স পটাশিয়াম ম্যাগনেসিয়াম ফসফরাস এবং জিম টপ এর জন্য অত্যন্ত উপকারী এর পাশাপাশি ব্রন দূর করতে সাহায্য  করে।

মধু এবং শসার ফেসপ্যাক

 উপাদান

  •  এক চামচ রস 
  • এক চামচ শসার পেস্ট 
  • আধা চামচ মধু

ব্যবহার বিধি শসার পেস্টে ওটস যোগ করুন এবং এটি ভালোভাবে মেশাতে হবে এর সাথে মধু যোগ করে মিক্সড করতে হবে হওয়ার পরে পেজটি আপনার মুখে লাগাইতে হবে। 

আপনি কতটা লাভজনক হবেন ?

 মধুতে এন্টি ইনফ্লেমেটরি এবং এন্টি মাইক্রোবিয়াল রয়েছে এগুলো ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সৃষ্ট ব্রন এবং প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে।

 লেবু ও শসা ফেসপ্যাক

 উপাদান 

  • তিন টেবিল চামচ শসার রস
  •  আদা থেকে এক চামচ লেবুর রস

প্রয়োগ বিধিঃ উভয় রস মিশিয়ে একটি পেজ প্রস্তুত করতে হবে এবার তুলোর সাহায্যে মুখে এবং ঘাড়ে লাগাতে হবে ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে।

কতটা লাভজনক লেবুযুক্ত মাছটি অক্সিডেটিভ স্টেট দ্বারা সৃষ্ট পার্থক্য কমায়। লেবুর নির্দেশ ত্বক উজ্জ্বলকারী ক্রিমগুলোতে একটি শক্তিশালী ভূমিকা পালন করে থাকে ।  লেবুর রস শসা ব্যবহার করা যেতে পারে চিকিৎসার জন্য মুখের ত্বকে উপকারী হয়ে থাকে।

নারিকেল তেল এবং শসার ফেসপ্যাক

উপাদান সমূহ 

  • অর্ধেক শসা 

  • এক চা চামচ নারিকেল তেল

প্রয়োগ বিধিঃ  শসা গ্রেট করে তাতে নারকেল তেল দিতে হবে তারপর এই পেজটি মুখেই ভালোভাবে লাগাতে হবে ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর হালকা গরম পানি দিয়ে ত্বক পরিষ্কার করতে হবে।

শসা এবং দুধের ফেসপ্যাক

 উপাদানঃ

  • দুই চামচ শশার পেস্ট

  •  এক চামচ দুধ

ব্যবহার বিধিঃ সকল উপকরণ মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করুন। এবার মিশ্রণটি আপনার ত্বকে ভালোভাবে লাগিয়ে দিন। কমপক্ষে 20 মিনিট পর হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

কতটা লাভজনকঃযারা উজ্জ্বল ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ত্বক চান তারা দুধ ব্যবহার করতে পারেন।  দুধে উপস্থিত এন্টি ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য ব্রণের ব্যাকটেরিয়া দূর করে। এজন্য দুধ পানের পাশাপাশি দুধ মুখেও লাগান। প্রতিদিন দুধ পান ও ত্বকে দুধ ব্যবহার করলে ত্বক থাকে তরুণ উজ্জ্বল, সান ট্যান প্রতিরোধ করে।

শসা এবং বেকিং সোডা ফেসপ্যাক 

উপাদানঃ এক চামচ তাজা  শসার  রস এক চামচ বেকিং সোডা 

ব্যবহারবিধিঃ শসা থেকে তাজা রস বের করুন এবং বেকিং সোডা মিশিয়ে নিন। মুখে এই মিশ্রণটি লাগানোর পাঁচ থেকে দশ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন।

কতটা লাভজনকঃ শসা এবং বেকিং সোডার মিশ্রণ মুখের জন্য অত্যন্ত ভালো। প্রকৃত অর্থে এটি মুখে চুলকানি বা এলার্জি কমায়। এর সাথে, বেকিং সোডা মুখের তৈলাক্ত ভাব দূর করে।

শসা এবং হলুদ ফেসপ্যাক

উপাদানঃ

অর্ধেক শসা এক চিমটি হলুদ এক চা চামচ লেবুর রস 

 ব্যবহারবিধিঃ শশা ম্যাশ করে পেস্ট তৈরি করুন। এতে লেবুর রস ও হলুদ দিয়ে উত্তমরূপে মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি মুখে লাগিয়ে ১৫ মিনিট পর হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

 কতটা লাভজনকঃ হলুদে উপস্থিত কারকিউমিন যৌগ  এন্টি- ইনফ্লেমেটরি,  এন্টি- ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য সমৃদ্ধ। এই মিশ্রণ ত্বককে পরিষ্কার ও  ব্রণ থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে।

আপেল এবং শসা ফেসপ্যাক

 উপাদান সমূহ 

  • অর্ধেক শসা 
  • অর্ধেক আপেল 
  • এক টেবিল চামচ ফটো

কিভাবে ব্যবহার করবেনঃ আপেল এবং শসা কেটে ম্যাচ করুন এবার এতে অটোর যোগ করে ব্লেন্ড করে নরম পেস্ট তৈরি করুন মুখে এবং ঘাড়ে পেস্ট লাগান বিশ মিনিট পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন

কতটা উপকারীঃ ত্বকের জন্য অত্যন্ত উপকারী ফল  আপেলে যথেষ্ট পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে বার্ধক্যের লক্ষণ ও বলিরেখা প্রতিরোধ  প্রতিরোধ করে আর আপনার ত্বক কে করবে মসূন। 

মোটকথাঃ উক্ত আলোচনা দ্বারা প্রতিয়মান হয় যে, ত্বক ফর্সা করার যে সমস্ত তথ্য উপাত্ত প্রদান করা হয়েছে, যা একজন ব্যক্তি তার নিজের ত্বককে ফরসা রাখার অনেক কৌশল লিপিবদ্ধ করা হয়েছে । যা সহজে এই সমস্ত টেকনিক ব্যবহার করে আপনার ত্বককে উজ্জ্বলতা  বাড়াতে পারবেন।  তাই আজকে আমার এই কন্টেনটিতে যে সমস্ত  কৌশল প্রদান করা হয়েছে, আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে আজকের মত এখানেই শেষ খোদা হাফেজ।

 

 

admin

মোঃ শফিকুল ইসলাম লেবু (Lecturer) ডালিয়া, ডিমলা, নীলফামারী। আমি বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক বিষয়ে কন্টেইন ও ব্লগিং পোষ্ট করে থাকি, এ ব্যাপারে পাঠকগন মতামত দিলে - যথাসম্ভব উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *